কঠিন কাজ সহজ হওয়ার দোয়ানারীরা নিজের নামের সঙ্গে স্বামীর নাম যুক্ত করতে পারবে?দৃষ্টির নিয়ন্ত্রণ কি ব্যভিচারমুক্ত থাকার উপায়?বেশি বেশি সালাম আদান-প্রদান করবেন কেন?অনুমান করে কথা বলার পর করণীয় কী?
No icon

একটি ছোট্ট আমলের বিশেষ ৩টি মর্যাদা

একটি ছোট্ট ও সহজ আমলের ৩টি বিশেষ মর্যাদা। মুমিন মুসলমানের জন্য এর চেয়ে বড় সৌভাগ্যের ব্যাপার আর কী হতে পারে! কোনো মুসলিম যদি নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উপর একবার দরূদ শরিফ পড়ে মহান আল্লাহ তাআলা বান্দাকে বিশেষ ৩টি নেয়ামতে পুরস্কৃত করেন। কী সেসব নেয়ামত?

প্রথমেই ছোট্ট একটি দরূদ পড়েই আমলটি শুরু করি। তাহলো- صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَ سَلَّم সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম

রাসুলুল্লাহু সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সম্মানে প্রতিটি দিন-রাত সময়-সুযোগ হলেই তাঁর প্রতি দরূদ পড়া জরুরি। এ দরূদেই মিলবে ৩টি বিশেষ মর্যাদা। যে মর্যাদার কথা ওঠে এসেছে প্রিয় নবির হাদিস মোবারকে-

হজরত আনাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেনরাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেনযে আমার ওপর একবার দরূদ পড়বে<আল্লাহ তাআলা তার উপর- ১০টি রহমত নাজিল করবেন< ১০টি গোনাহ ক্ষমা করে দেবেন এবং ১০টি রহমতের দরজা খুলে দেবেন। (মুসনাদে আহামদ>নাসাঈ)

উম্মতে মুহাম্মাদির জন্য এর চেয়ে বড় সৌভাগ্যের বিষয় আর কী হতে পারে! দরূদ ছোট হোক বড় হোক মহান আল্লাহ ওই বান্দা

 ১০টি গোনাহ ক্ষমা করে দেবেন।

১০টি রহমত নাজিল করবেন।

১০টি রহমতের দরজা খুলে দেবেন বা মর্যাদা বাড়িয়ে দেবেন।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, ছোট-বড় অনেক দরূদ আছে। যে যেটি পারবে সেটিই পড়বে। মূল কথা হলো প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি বেশি বেশি দরূপ পড়ে হাদিসে ঘোষিত বিশেষ ৩টি ফজিলত ও মর্যাদা পাওয়ার সর্বাত্মক চেষ্টা করা জরুরি।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে বছরজুড়ে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে ভালোবেসে বেশি বেশি দরূদ পড়ার তাওফিক দান করুন। হাদিসে ঘোষিত ফজিলত মর্যাদা ও গুনাহ থেকে মুক্তি পাওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।