যে গুণ থাকলে আল্লাহ বান্দাকে ক্ষমা করবেনভারতের প্রাচীনতম মসজিদ চেরুম্যান জুম্মা মসজিদ মুসলমানদের কাছে আল-আকসা বিশ্বের তৃতীয়-পবিত্রতম স্থান আল্লাহর ওপর ভরসা কী?‘কাজা’ নামাজ আদায়ের নিয়ম ও সময়
No icon

কখন কীভাবে তায়াম্মুম করতে হয়

অজু বা গোসলের মাধ্যমে পবিত্রতা অর্জন করা যায়। কিন্তু পানি না পেলে বা পানি ব্যবহারে অপারগ হলে তখন কী করবেন? কোরআনুল কারিমে এ ব্যাপারে সুস্পষ্ট সমাধান দেওয়া আছে। শারীরিক পবিত্রতায় অজু-গোসলের বিকল্প হচ্ছে তায়াম্মুম।

কখন তায়াম্মুম করবেন যখন পানি না থাকে বা এমন দূরত্বে পানি থাকে যে, পানির জন্য অপেক্ষা করলে নামাজের সময় পার হয়ে যাবে। অথবা এমন অসুস্থতা বা এমন শীত, যাতে পানি ব্যবহার করলে প্রাণনাশের বা বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা আছে। এ অবস্থায় অজু-গোসলের পরিবর্তে তায়াম্মুম করা যাবে। উভয় ক্ষেত্রে তায়াম্মুমের নিয়ম এক ও অভিন্ন।

তায়াম্মুমের নিয়ম ১. প্রথমেই তায়াম্মুমের ইচ্ছা করা
২. তায়াম্মুমের শুরুতে বিসমিল্লাহ বলা ৩. উভয় হাত পবিত্র মাটিতে মেরে একটু সামনে-পেছনের দিকে নিয়ে ভালোভাবে স্পর্শ নেওয়া
৪. মাটিতে হাত মারার পর মাটি ঝেড়ে ফেলা
৫. মাটিতে হাত মারার সময় আঙুলগুলো ফাঁক করে রাখা
৬. উভয় হাতের তালু দ্বারা পুরো মুখমণ্ডল মাসেহ করা
৭. আগের মতো উভয় হাত পবিত্র মাটিতে মেরে একটু সামনে-পেছনে দিকে নিয়ে ভালোভাবে স্পর্শ নেওয়া
৮. বামহাতের তালু দ্বারা ডানহাত কনুইসহ মাসেহ করা
৯. ডানহাতের তালু দ্বারা বামহাত কনুইসহ মাসেহ করা
১০. মাসেহের ধারাবাহিকতা যথাযথভাবে ঠিক রাখা
১১. বিরতিহীনভাবে তায়াম্মুম করা অর্থাৎ উভয় মাসেহে বিলম্ব না করা।

তায়াম্মুমের মুস্তাহাব যদি প্রবল ধারণা থাকে যে, শেষ সময় পর্যন্ত পানি পাওয়া যাবে; তাহলে তায়াম্মুমের জন্য শেষ সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করা মুস্তাহাব। আর যদি পানি পাওয়ার সম্ভাবনা না থাকে, তাহলে তায়াম্মুম করে মুস্তাহাব সময়ে ইবাদত সম্পন্ন করতে হবে।